সাহিত্য সংস্কৃতি

  • মধুসূদনের অনুরাগ আগামী প্রজন্মের কাছে দেশপ্রেমের নিদর্শন হয়ে থাকবে

    ঢাকা : রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ বলেছেন, জন্মভূমির প্রতি মাইকেল মধুসূদন দত্তের গভীর অনুরাগ আগামী প্রজন্মের কাছে দেশপ্রেমের চিরন্তন নিদর্শন হিসেবে চির-জাগরুক থাকবে। মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের ১৯৩তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আজ শুক্রবার দেয়া এক বাণীতে তিনি এ কথা বলেন। বাংলা সাহিত্যের মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের ১৯৩তম জন্মবার্ষিকীতে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় ও যশোর জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে … বিস্তারিত »

  • গুলিবদ্ধ টিউলিপ পর্ব ৫

    ্দিরের দেবী পরে আছেন, কিন্তু কেউ সেখানে আসে না দর্শনে । জসবিন্দ্রের খুব খারাপ লাগল মন্দিরের জরা জীর্ণ অবস্থা দেখে । আরবাজ বলল, আমি শুনেছি এখানকার হিন্দুরা ইউরোপ, আমেরিকা, ইন্ডিয়াতে ভালোভাবে প্রতিষ্ঠিত, কিন্তু নিজেদের দেশের জন্য কোন সাহায্য তাঁরা পাঠায় না । জসবিন্দরের খুব ইচ্ছা হল আশেপাশের শিখ পরিবার গুলোর সাথে ও কথা বলবে, কিন্তু কোন পরিবার কথা বলার জন্য প্রস্তুত ছিল না, কারন ক্যামেরার সামনে কথা বললে তাঁদের তালেবানের হাতে প্রাণ দিতে হতে পারে । সুরজ বলল স্থানীয় শিখ পরিবারের বাচ্চারা কেউ স্কুলে যেতে পারেন না, স্কুলে বাচ্চারা গেলে তালিবানের হাতে প্রাণ দিতে হবে, তাছাড়া তালিবানরা যেসব স্কুল চালান, সেখানে ইসলামিক শিক্ষা দেওয়া হয়, একজন শিখের পখখে সে শিক্ষা নেওয়া সম্ভব না । পুরোহিত বলল, তোমরা সূর্যাস্তের আগেই গজনী থেকে বেরিয়ে পর, এখানে বেশিক্ষণ থাকা তোমাদের ঠিক না । জসবিন্দ্রের মনে হল আর বেশিক্ষণ এখানে থাকা ঠিক হবে না । জসবিন্দ আফ্রুন আর আরবাজ বেরিয়ে পড়ল কাবুলের উদ্দেশ্যে । রাস্তা যতই খারাপ হোক, ট্রাফিক জ্যাম থাকুক তাও তাঁদের বেরিয়ে যেতে হবে এখান থেকে । শেষবারের মতন নিজের জন্ম ভিটাকে প্রণাম করে বেরিয়ে পরে জসবিন্দর । পথে মরুপ্রান্ত্রের মাঝে সূর্যাস্ত হয় । সূর্যাস্তের রক্তিম আলোর আভায় জানালার কাঁচ লাল হয়ে যায় । যেদেশের স্বাধীনতার জন্য একদিন প্রাণ দিয়েছিল জসবিন্দ্রের পূর্বপুরুষ , আজ সেই স্বাধীন দেশের রক্তাক্ত শরীর ঘেঁটে কিছু পচাগলা মাংস আর দুর্গন্ধময় রক্ত নিয়ে জসবিন্দরকে ফিরতে হবে । জসবিন্দররা এই ভাবে লোক চক্ষুর আড়ালে ভয়ে ভয়ে নিজ দেশে প্রবেশ করে, তারপর দিনের আলো থাকতে থাকতে চর্যার মতন তাঁদের পালিয়ে যেতে হয় , ঠাই নিতে হয় পরবাসে । প্রবাসী জীবনের সেই ভয়ঙ্কর যন্ত্রণা শুধুমাত্র ক্যামেরা বন্দী হয়ে পরে থাকে, তা কোন ভাবে পৌঁছায় না সাধারণ মানুষের কাছে । কিন্তু সে সঙ্গে নিয়ে যাবে আফ্রুন আর আরবাজের মতন দুই বন্ধুর আন্তরিক আত্বিয়তাকে, যারা নিজেদের প্রাণভয়কে অস্বীকার করে সঙ্গী হয়েছিল ওর ।

    জসবিন্দরকে হোটেলে ছেড়ে দিয়ে আফ্রুন বাড়ি ফিরে রাতে বিছানায় শুতে এলো, কিন্তু ওর ঘুম আসছে না, খালি মনে হচ্ছে এদেশে ওদের কোন ভবিষ্যৎ নেই, জসবিন্দ্রের সাথে যদিন একবার লন্ডন যাওয়া যায় , তাহলে হয়তো ভাগ্য কিছুটা হলেও খুলবে । পরের দিন ভোরে জসবিন্দরের ফ্লাইট, তারপর যদি আর দেখা না হয় । আফ্রুন ভুলে যায় পরিবার তাকে পুরুষ সাজিয়ে রাখলে সে একজন নারী এবং একজন নারীর একজন পুরুষকে এত রাতে ফোন করা ঠিক হবে না । আফ্রুন ওর মোবাইল ফোনটা অন করে জসবিন্দরকে ফোন করে । একটা রিং হবার সঙ্গে সঙ্গে জসবিন্দর ফোনটা তোলে ।

    আফ্রুন তোমার কথাই ভাবছিলাম , বল এত রাতে ফোন করলে যে ?

    আফ্রুন কথা ঘুরিয়ে বলতে পছন্দ করে না, যে কোন কথা সোজাসুজি বলতে ও ভালোবাসে । আফ্রুন এবারও সোজাসুজি বলল, দেখ , এখানে আমাদের কোন ভবিষ্যৎ নেই, তুমি আমাকে তোমার দেখে নিয়ে চলো, আমি নিজের ভবিষ্যৎ তৈরি করতে চাই ।

    দু জন বেশ কিছুক্ষণ চুপ করে থাকল, তারপর জসবির আফ্রুনকে বলল, ঠিক আছে, তুমি যাবে লন্ডনে । কিন্তু আফ্রুন তুমি তো বেশ সুন্দরী , ওখানে যদি কোন পুরুষ তোমাকে জীবনসঙ্গী হিসেবে গ্রহণ করে তোমার নারীত্বকে স্বীকৃতি দিতে চায় , তখনও কি তুমি এই ছদ্মবেশ পরে থাকাই পছন্দ করবে ? না এর থেকে বেরিয়ে এসে একটা সুন্দর জীবনে প্রবেশ করা পছন্দ করবে ?

    আফ্রুন বুঝতে পারল জসবিন্দ্র জানে আফ্রুনের আসল পরিচয়, আফগানিস্তানে এই ভাবে ফিরে আসার আরেকটা কারণ যে আফ্রুন তা বুঝতে আর ওর অসুবিধা হল না, আর আফ্রুন একজন তারই তা জেনেও এই দুর্গম পথে আফ্রুঙ্গে সঙ্গী করেছে হয়তো ভালোবাসার টানে । দুদিক থেকে ঘন নিঃশ্বাসের শব্দ আসতে লাগল, আগুন দাউদাউ করে জ্বলে ওঠার আগে যেবন কুণ্ডলী করা ধোঁয়া বেরিয়ে আসে সেরকম একটা পরিবেশ তৈরি হল ।

    আফ্রুনের মুখ থেকে অন্ধকারে বেরিয়ে এলো একটা নারীত্ব ঘন কণ্ঠ, হায় আল্লা ।

    -->

    দেবশ্রী চক্রবর্তীঃ ভরা দুপুরবেলা দরজায় গটগট শব্দ, এই সময়টা বিশ্রামের সময় নাস্মার । ছেলে সহর কেউ এই সময় থাকে না । সারা দিন ঘরের কাজ কর্ম সেরে এই সময় নাস্মা একটু ঘুময়, আমরা বাঙ্গালীরা যাকে বলি ভাত ঘুম । না নাস্মা ভাত খেয়ে ঘুমচ্ছে না, ও আজ একটু মুর্গা আর রুটি খেয়ে ওড়না দিয়ে মুখ … বিস্তারিত »

  • লেখকেরা জাতির শ্রেষ্ঠ প্রতিভা

    সাহিত্য সংস্কৃতি ডেস্ক ঃ  ফেব্রুয়ারির প্রথম তারিখ থেকে শুরু হতে চলেছে বাঙালির চেতনাগার বাংলা একাডেমি আয়োজিত ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে মাসব্যাপী আমাদের প্রাণের বইমেলা। বইমেলা ঘিরে প্রতিবছর অনেক নতুন নতুন বই পাঠকের সামনে উপস্থিত করেন প্রকাশকরা। প্রতিবছর প্রায় ৪থেকে ৫ হাজার নতুন বই প্রকাশ করেন পাঠকেরা তাদের পচ্ছন্দের প্রিয় লেখকদের বই মেলা থেকে সংগ্রহ করেন তারা। … বিস্তারিত »

  • কুমারখালীতে পদ্মা গড়াই সাহিত্য সংসদের কমিটি গঠন

    কু্ষ্টিয়া থেকে থেকে হুমায়ুন কবিরঃ  কুমারখালীতে গঠিত হল, “পদ্মা গড়াই সাহিত্য সংসদ” কুমারখালী, কুষ্টিয়া।   সভাপতি কবি সৈয়দ আবদুস সাদিক, সহ- সভাপতি কবি, নাট্যকার ও সাহিত্যিক লিটন অাব্বাস ও কবি ও প্রাবন্ধিক মেহেদী হাসান, সাধারন সম্পাদক কবি সিদ্দিক প্রামাণিক, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক কাজী সাইফুল, সাংগাঠনিক সম্পাদক গীতিকার অানোয়ারুল ইসলাম, অর্থ স: কবি পরিমল দত্ত, প্রকাশনা … বিস্তারিত »

  • কুমার নদের তীরে জসীম পল্লী মেলা শুরু

    ফরিদপুর থেকে হারুন-অর-রশীদঃ  ফরিদপুর শহরতলীর অম্বিকাপুরে কবির বাড়ির সামনে কুমার নদের তীরে জসীম উদ্যানে আজ শুক্রবার থেকে শুরু হচ্ছে জসীম পল্লী মেলা। জেলা প্রশাসন ও জসীম ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে কবির জন্ম বার্ষিকী উপলক্ষে এই মেলার আয়োজন করা হয়েছে। পল্লী কবির ১১৪ তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে ১৩ জানুয়ারি বিকেলে মেলার উদ্বোধন করেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় … বিস্তারিত »

  • অলির আমন্ত্রন

    অলির আমন্ত্রন হুমায়ুন কবির অলির আমন্ত্রনে আসে ভোমরা। মধু আহোরনে ফিরে যায় মৌ মাছি। কৃষকের বাহবা হয়েছে ভাল ফলন। পরাগায়ন হয়েছিল অলির আমন্ত্রনে। ভাব বিনিময়ে একর অপরে চলছে যুগান্তরে। বিধাতা গড়েছেন রঙ্গমঞ্চ ভালবাসার টানে। কেনইবা অলি আমন্ত্রন দিবে মৌ মাছিরে। ভাবের আদান প্রদান সৃষ্টিলহরে এথনও বিদ্যমান। মানব দরদে ভালবাসা ছিন্নহবার নয়। তবু কেন হানাহানি তোমার … বিস্তারিত »

  • ঐতিহ্যবাহী কুমারখালী বাসী নাট্যভাস্কর ড. মুকিদ চৌধুরীকে শুভেচ্ছা জানালেন

    কুষ্টিয়া থেকে দীপু মালিক ঃ  আজ সকালে ঐতিহ্যবাহী  কুমারখালীর প্রাচীণতম বিদ্যাপিঠ (১৮৫৬)ও কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের ১নং অনুমোদিত স্কুল কুমারখালী এম এন পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক মোঃ শহিদুল ইসলামের আমন্ত্রণে নাট্যভাস্কর ড. মুকিদ চৌধুরীকে আমন্ত্রণ  জানালে তিনি সেখানে যান । মুকিদ চৌধুরী বিদ্যালয়ে উপস্থিত হলে সকল শিক্ষক-শিক্ষিকা তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান এবং  বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীরা তাকে সম্মান … বিস্তারিত »

  • কবিতার দিকে ধেয়ে অাসছে

    কবিতার দিকে ধেয়ে অাসছে জোবায়ের মিলন ‘কবিতা’ তুমি সাবধান তোমার দিকে ধেয়ে অাসছে অপরাহ্ন, বিচলিত মেঘ। নৈ:শব্দের একাকিত্ত্ব তোমাকে গিলে খেতে অালোর গতির চেয়ে জোরে অচেনা এক যান চালিলে এগিয়ে অাসছে দ্রুত গতিতে। মঙ্গল গ্রহ, শণি গ্রহ বা বৃহ:ষ্পতি থেকে নয় পৃথিবীর ভিতর থেকেই ছুটে অাসছে এ যান।   তোমার শব্দকে থামিয়ে দিতে পারলে তোমার … বিস্তারিত »

  • কুমারখালীতে শেষ হলো নাট্যভাষ্কর নাট্যকর্মশালা

    কুষ্টিয়া থেকে দিপু মালিকঃ  বাংলা মুভমেন্ট থিয়েটার শিল্পধারার জনক নাট্যভাষ্কর ড. মুকিদ চৌধুরী গত ২ জানুয়ারি থেকে ৪ জানুয়ারি কুমারখালী আবুল হোসেন তরুন অডিটোরিয়ামে তিনদিন সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত টানা বিরতিহীন শিল্পী ঐক্যজোটের সদস্যদের কর্মশালায় প্রশিক্ষণ দিলেন।   সচল  ও স্থির মুভমেন্ট শেখালেন, বাদযন্ত্র, সংগীত, আবৃত্তির সাথে সাথে অঙ্গাভিনয়, মুভমেন্ট ও অভিনয়ের নানা কৌশলও দেখালেন। … বিস্তারিত »