ঝিনাইগাতীতে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে বাল্য বিয়ে পন্ড

Feature Image

ঝিনাইগাতী থেকে মুহাম্মদ আবু হেলালঃ  ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে শাপলা আক্তার নামের এক কিশোরীর বাল্য বিবাহ পন্ড করে দেওয়া হয়। ২৭জুলাই বৃহস্পতিবার দুপুরে শেরপুরের ঝিনাইগাতী উপজেলার মালিঝিকান্দা খামারপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। সে উপজেলার মালিঝিকান্দা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেনীর ছাত্রী।

 

গোপন সংবাদের ভিত্তিতে উপজেলা সহকারী কমিশনার(ভুমি) কর্মকর্তা, ভারপ্রাপ্ত উপজেলা নির্বাহী অফিসার(ইউএনও) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মুহাম্মদ সাদিকুর রহমান, উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা ফ্লুরা ইয়াছমিনসহ সঙ্গীয় পুলিশ নিয়ে হাতেনাতে বাল্য বিবাহের প্রস্তুতি দেখতে পান এবং মেয়েকে বাল্য বিবাহ দেওয়ার অপরাধে মেয়ের বাবা সাহেব আলীর বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহন করতে চাইলে, মেয়ের বাবা নিঃশর্ত ক্ষমা চান এবং নিজের অপরাধ স্বীকার করেন।

 

পরে স্থানীয় লোকজনের অনুরুধে এবং মেয়ের বাবা সাহেব আলী মেয়ের বয়স ১৮বছর পূর্ণ না হওয়া পর্যন্ত মেয়েকে পড়াশুনা করাবে এবং এর পূর্বে মেয়েকে বিবাহ দিলে আইনত তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পারবে মর্মে লিখিত মুচলেকার মাধ্যমে ছাড়া পান। ফলে বাল্য বিয়ের হাত থেকে রক্ষা পেল কিশোরী শাপলা। ঝিনাইগাতী উপজেলা প্রশাসন ও থানা পুলিশ বাল্য বিয়ের বিরুদ্ধে অবস্থান নেওয়ায় অনেকাংশে বাল্য বিয়ে বন্ধ হয়ে গেছে। তারপরেও অনেকেই গোপনে বাল্য বিয়ে দিতে গিয়ে ধরা খাচ্ছে ভ্রাম্যমান আদালতের কাছে। সহকারী কমিশনার(ভুমি) কর্মকর্তা, ভারপ্রাপ্ত উপজেলা নির্বাহী অফিসার(ইউএনও) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মুহাম্মদ সাদিকুর রহমান এ বিষয়ে সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

আরো খবর »