১ ঘণ্টা সময় বাড়ছে পুঁজিবাজারের লেনদেন

Feature Image

ঢাকা : স্বাভাবিক লেনদেন চালুর আগে ও পরে ‘প্রি-মার্কেট’ ও ‘আফটার আওয়ার মার্কেট’ নামে লেনদেন সময় বাড়াতে স্টক এক্সচেঞ্জের প্রস্তাবে ইতিবাচক সাড়া দিয়েছে শেয়ারবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। কমিশনের মৌখিক সম্মতির পর এ বিষয়ে অভিন্ন সময় নির্ধারণে আজ বৈঠকে বসছে দেশের উভয় স্টক এক্সচেঞ্জ। বিএসইসির পরবর্তী সভায় এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত হতে পারে বলে নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে।

বিএসইসি সূত্র বলছে, চলতি বছরের মার্চে স্বাভাবিক লেনদেনের আগে-পরে আধা ঘণ্টা করে মোট ১ ঘণ্টা অতিরিক্ত লেনদেন সময় বাড়াতে নিয়ন্ত্রক সংস্থার কাছে আবেদন করে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই)। প্রি-মার্কেট ও আফটার আওয়ার মার্কেট ট্রেড নামে এ লেনদেন ব্যবস্থা চালুর অনুমতি চেয়ে আবেদনের পর বিষয়টি পর্যালোচনা করেছে কমিশন। তবে দেশের অপর পুঁজিবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) আগে থেকেই আফটার আওয়ার ট্রেড চালু থাকায় উভয় স্টক এক্সচেঞ্জের মধ্যে সমন্বয় চায় বিএসইসি। ফলে অতিরিক্ত ট্রেডিং আওয়ার চালুর বিষয়ে নিজেদের মধ্যে বৈঠক করে একটি অভিন্ন সময় ও পদ্ধতি নির্ধারণে ডিএসই ও সিএসইকে পরামর্শ দিয়েছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা।

কমিশনের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, অতিরিক্ত ট্রেডিং আওয়ার চালুর বিষয়ে ডিএসইর প্রস্তাবনাকে ইতিবাচক হিসেবে নিয়েছে বিএসইসি। উভয় স্টক এক্সচেঞ্জ থেকে অভিন্ন প্রস্তাব দিলে কমিশন বিবেচনা করবে। দেশের বাইরে থাকা বিএসইসির চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. খায়রুল হোসেন ও কমিশনার ড. স্বপন কুমার বালা দেশে ফিরলে কমিশনের পরবর্তী সভায় সিদ্ধান্ত হতে পারে বলেও জানান তিনি।

বর্তমানে দেশের দুই শেয়ারবাজার ডিএসই ও সিএসইতে স্বাভাবিক লেনদেন সময় সকাল সাড়ে ১০টা থেকে দুপুর আড়াইটা। একদিনে মোট ৪ ঘণ্টা লেনদেন হয়। ডিএসই কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, অতিরিক্ত ১ ঘণ্টার ট্রেডিং আওয়ারে নিয়ন্ত্রক সংস্থা সম্মতি দিলে লেনদেন শুরুর আগেই (প্রি-মার্কেট সেশন) বিনিয়োগকারীরা তাদের শেয়ার ক্রয় বা বিক্রয় আদেশ দিতে পারবেন। তবে এ সময়ে লেনদেন সম্পন্ন হবে না। লেনদেন সম্পন্ন হবে স্বাভাবিক লেনদেন সময় চালুর সঙ্গে সঙ্গে। অন্যদিকে স্বাভাবিক লেনদেন সময় শেষে (আফটার আওয়ার ট্রেড) বিনিয়োগকারীরা আগের ক্রয় বা বিক্রয় আদেশগুলো সংশোধন করে লেনদেন সম্পন্ন করার সুযোগ পাবেন।

জানতে চাইলে ডিএসইর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মাজেদুর রহমান বণিক বার্তাকে বলেন, শেয়ারবাজারে তারল্যপ্রবাহ বা লেনদেন বাড়াতে লেনদেন সময় বাড়ানোর প্রস্তাব করা হয়েছে। প্রস্তাবনাটি পর্যালোচনা করে কমিশনের পক্ষ থেকে ইতিবাচক ইঙ্গিত দেয়া হয়েছে। সিএসইর সঙ্গে আলোচনা করে একটি অভিন্ন প্রস্তাবনা জমা দিলে কমিশনের পরবর্তী সভায়ই এ বিষয়ে ভালো সংবাদ পাওয়া যাবে বলে আমরা আশাবাদী।

তিনি আরো বলেন, নির্ধারিত ৪ ঘণ্টার লেনদেন সময়ে অনেক বিনিয়োগকারী লেনদেন সম্পন্ন করতে পারেন না। এটা তাদের ওইদিন শেয়ার লেনদেনের সুযোগ করে দেবে। কিছু বড় শেয়ারবাজারে প্রি অ্যান্ড পোস্ট মার্কেট সেশনে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের লেনদেনের সুযোগ দেয়া হলেও আমরা সব ধরনের বিনিয়োগকারীদের জন্য চাইব।

উন্নত বিশ্বের কয়েকটি দেশে অনেক আগে থেকেই শেয়ারবাজারে নির্ধারিত সময় শেষে অতিরিক্ত লেনদেনের ব্যবস্থা চালু রয়েছে। বিশ্বের বড় শেয়ারবাজার যুক্তরাষ্ট্রের নাসডাকের স্বাভাবিক লেনদেন সময় সকাল সাড়ে ৯টা থেকে বিকাল ৪টা। স্টক এক্সচেঞ্জটিতে প্রি-মার্কেট সেশন চালু হয় ভোর সোয়া ৪টা থেকে সকাল সাড়ে ৯টা পর্যন্ত। অন্যদিকে পোস্ট আওয়ার ট্রেড চালু হয় বিকাল সোয়া ৪টায়। চলে রাত ৮টা পর্যন্ত। বাংলাদেশে ১৯৯৯ সালে সিএসই আফটার আওয়ার ট্রেড চালু করে। শুরুতে আধা ঘণ্টা অতিরিক্ত লেনদেন চালু রাখলেও এখন তা ৫ মিনিটে নামিয়ে এনেছে প্রতিষ্ঠানটি। তবে ক্ষেত্রবিশেষে ১৫-২০ মিনিটও অতিরিক্ত সময়ের লেনদেন চালু রাখে সিএসই।

সিএসইর ব্যবস্থাপনা পরিচালক সাইফুর রহমান মজুমদার বলেন, এ স্টক এক্সচেঞ্জটির ইলেকট্রনিক লেনদেন ব্যবস্থা চালুর সময়ই ট্রেডিং সিস্টেমে প্রি অ্যান্ড পোস্ট ট্রেডিং করার ব্যবস্থা ছিল। তবে শুরু থেকে পোস্ট ট্রেডিং সুবিধা ব্যবহার করে আসছে সিএসই। সিএসইতে দুপুর আড়াইটায় স্বাভাবিক লেনদেন সময় শেষ হওয়ার পরও পরের ৫ মিনিট ধরে লেনদেন চলে, যা ২টা ৩৫ মিনিটে শুরু হয়ে শেষ হয় ২টা ৪০ মিনিটে। এ সময় ব্যক্তি ও প্রাতিষ্ঠানিক যেকোনো ক্যাটাগরির বিনিয়োগকারী এ সেশনে কেবল ওইদিনের ক্লোজিং দরেই লেনদেনের অর্ডার দিতে পারেন। তবে ডিএসইর সঙ্গে সমন্বয় করে নতুন করে উভয় স্টক এক্সচেঞ্জে অভিন্ন অতিরিক্ত লেনদেন সময় চালুর বিষয়ে কথা হচ্ছে। আগামীকাল (শনিবার) চট্টগ্রামে ডিএসইর সঙ্গে এ-সংক্রান্ত একটি সভা অনুষ্ঠিত হবে।

Loading...

আরো খবর »